মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

রাজবাড়ীর ধ্বংসাবশেষঃ

গোবিন্দ সিংহ বানিয়াচং রাজ্যের অধিপতি হওয়ার পর পদ্মনাভ বা কর্ণখাঁর দিঘীর পশ্চিম পাড়ে রাজবাড়ী গড়ে তোলেন। বর্তমানে ঐ রাজবাড়ীর কিয়দংশ বিদ্যমান আছে। পাশে ধর্মান-রিত গোবিন্দ সিংহ তথা হবীব খাঁ’র (প্রাচীন ইটে মোড়ানো) সমাধি রয়েছে। রাজবাড়ীর বাকি প্রাচীন সরিয়ে প্রায় একশ বছর পূর্বে লোকনাথ রমন বিহারী উচ্চ বিদ্যালয় স'াপন করা হয়। এ রাজবাড়ীর ধ্বংসাবশেষে কিয়দংশ নিয়ে একটি ভ্রান- ও কল্প কাহিনী এ অঞ্চলে প্রচলিত রয়েছে। ধ্বংসাবশেষের মধ্যে  পাথরের দালানের ৪টি পিলার দন্ডায়মান রয়েছে এবং এর চার পাশে বেলে ও মার্বেল পাথরের খন্ড বিখন্ড পড়ে আছে। ঐগুলোকে ‘হব্যা’ ও ‘ঘোমা’ দাড়া গুটি বলা হয়ে থাকে। কল্প কাহিনীতে ‘হব্যা’ ও ‘ঘোমা’ দুই ভাই পালোয়ান ছিলেন। তারা দিঘীর পাড়ে এ পাথরের খন্ড নিয়ে দাড়াগুটি খেলতো বলে জনশ্রুতি রয়েছে। আসলে ‘হব্যা’ ও ‘ঘোমা’ একই নাম। হবীব থেকে ‘হব্যা’ এবং গোবিন্দ থেকে ‘ঘোমা’ নামে অপভ্রংশে প্রচার পায়। প্রায় সপ্তদশ শতাব্দিতে দেওয়ান আবেদ রাজা ঐ রাজবাড়ী বানিয়াচং কসবার উত্তরাংশে স্থানান্তর করেন। ঐ এলাকা দেওয়ান বাগ হিসেবে পরিচিত। বর্তমানে ঐ রাজবাড়ীর জরাজীর্ণ প্রাচীন দালান ও প্রাচীন বিদ্যমান এবং সম্পূর্ণ মোঘল স'াপত্যে তৈরী একটি দর্শনীয় স'ান।

কিভাবে যাওয়া যায়:

বানিয়াচং উপজেলা পরিষদ থেকে পায়ে অথবা রিক্সাযোগে